বাংলাদেশে একজন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী বা উপমন্ত্রীর বেতন ভাতা কেমন? এর বাইরে তারা কি কি সুযোগ সুবিধা পান? বিবিসি বাংলার প্রতিবেদনে উঠে এসেছে বিস্তারিত। চলুন দেখে নেওয়া যাক।

প্রসঙ্গত, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন নবগঠিত মন্ত্রীসভার মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী মিলিয়ে ৪৭ সদস্য গতকাল সোমবার বিকেলে বঙ্গভবনের দরবার হলে শপথ গ্রহণ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর বেতন ভাতা
দ্য প্রাইম মিনিস্টার’স (রেমুনারেশেন অ্যান্ড প্রিভিলেজ) (অ্যামেন্ডমেন্ট) বিল- ২০১৬ অনুযায়ী, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর বেতন মাসে এক লাখ ১৫ হাজার টাকা। এছাড়া তিনি মাসিক বাড়ি ভাড়া পান এক লাখ টাকা, দৈনিক ভাতা পান তিন হাজার টাকা।

মন্ত্রীর বেতন ভাতা 
দ্য মিনিস্টারস, মিনিস্টার অব স্টেট অ্যান্ড ডেপুটি মিনিস্টারস (রেমুনারেশন অ্যান্ড প্রিভিলেজ) (অ্যামেন্ডমেন্ট) বিল- ২০১৬ অনুযায়ী, একজন মন্ত্রী বেতন পান মাসিক ১ লাখ ৫ হাজার টাকা। ডেপুটি স্পিকার, বিরোধী দলীয় নেতা এবং চিফ হুইপরাও সমান বেতন পান।মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী বা উপমন্ত্রী কাউকেই তাদের বেতনের জন্য কোনো কর দিতে হয় না।

একজন মন্ত্রী আরো যেসব সুবিধা পান

• দৈনিক ভাতা ২ হাজার টাকা
• নিয়ামক ভাতা মাসিক ১০ হাজার টাকা
• স্বেচ্ছাধীন তহবিল ১০ লাখ টাকা
• মোবাইল ফোন কেনার জন্য ৭৫ হাজার টাকা
• সরকারি খরচে সার্বক্ষণিক গাড়ি ঢাকার বাইরে অফিসিয়াল ট্যুরের জন্য অতিরিক্ত একটি জিপ গাড়ি পাবেন, যার যাবতীয় খরচ সরকার বহন করবে।
• সরকারি খরচে রেল ভ্রমণ ও বিদেশ ভ্রমণ
• বিনা ভাড়ায় সরকারি বাসভবন: গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি, টেলিফোনসহ ভবনটির যাবতীয় রক্ষণাবেক্ষণ সরকার বহন করবে
• সরকারি বাসায় সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা মূল্যের আসবাবপত্র
• সরকারী বাসায় না থাকলে বাড়ি ভাড়া বাবদ ৮০ হাজার টাকা, সেই সঙ্গে বাড়ি ব্যবস্থাপনা খরচ ও সব ধরণের সেবা খাতের বিল
বিমান ভ্রমণের জন্য বীমা সুবিধা আট লাখ টাকা

• সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা প্রহরী

• বাসস্থান থেকে অফিস বা অফিস থেকে বাসস্থানে যাতায়াতের খরচ পাবেন। নিজের এবং পরিবারের সদস্যদের ভ্রমণ খরচও তিনি পাবেন। এছাড়া অন্তত দুইজন গৃহকর্মীর ভ্রমণের খরচ পাবেন।

• উপ-সচিব পদমর্যাদার একজন একান্ত সচিব, সহকারী সচিব পদমর্যাদার একজন সহকারী একান্ত সচিব এবং ক্যাডারের বাইরে থেকে আরেকজন সহকারী একান্ত সচিব। জাতীয় বেতন স্কেলে দশম গ্রেডের দুইজন কর্মকর্তা।

• আরো পাবেন একজন জমাদার ও একজন আর্দালি, দুইজন এমএলএসএস, একজন পাচক বা পিয়ন।

প্রতিমন্ত্রীর বেতন ভাতা

• প্রতিমন্ত্রীদের বেতন প্রতি মাসে ৯২ হাজার টাকা। এই আয়ের ওপর কোন কর নেই। এছাড়া তিনি আরো পাবেন:

• দৈনিক ভাতা: দেড় হাজার টাকা
• প্রতিমন্ত্রীর নিয়ামক ভাতা: ৭ হাজার ৫০০ টাকা
• স্বেচ্ছাধীন তহবিল: সাড়ে ৭ লাখ টাকা
• মোবাইল ফোন কেনার জন্য ৭৫ হাজার টাকা
• বিনা ভাড়ায় সরকারি বাসভবন: গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি, টেলিফোনসহ ভবনটির যাবতীয় রক্ষণাবেক্ষণ সরকার বহন করবে
• আসবাবপত্র: সরকারি বাসায় সর্বোচ্চ চার লাখ টাকা মূল্যের আসবাবপত্র
• সরকারি বাসায় না থাকলে: বাড়ি ভাড়া বাবদ ৭০ হাজার টাকা, সেই সঙ্গে গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি, টেলিফোনসহ সব ধরণের সেবা খাতের বিল ও বাড়ি ব্যবস্থাপনা খরচ
• উপ-সচিব পদমর্যাদার একজন একান্ত সচিব, সহকারী সচিব পদমর্যাদার একজন সহকারী একান্ত সচিব এবং ক্যাডারের বাইরে থেকে আরেকজন সহকারী একান্ত সচিব। জাতীয় বেতন স্কেলে দশম গ্রেডের দুইজন কর্মকর্তা।

• আরো পাবেন একজন জমাদার ও একজন আর্দালি, দুইজন এমএলএসএস, একজন পাচক বা পিয়ন।

উপমন্ত্রীর বেতন ভাতা
• একজন উপমন্ত্রী বেতন পান ৮৬ হাজার ৫০০ টাকা। তাকেও বেতন ভাতার জন্য কোন কর দিতে হবে না।

• দৈনিক ভাতা: দেড় হাজার টাকা

• নিয়ামক ভাতা: ৫ হাজার টাকা
• স্বেচ্ছাধীন তহবিল: সাড়ে ৫ লাখ টাকা
• মোবাইল ফোন কেনার জন্য ৭৫ হাজার টাকা
• বিনা ভাড়ায় সরকারি বাসভবন: গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি, টেলিফোনসহ ভবনটির যাবতীয় রক্ষণাবেক্ষণ সরকার বহন করবে
• আসবাবপত্র: সরকারি বাসায় সর্বোচ্চ চার লাখ টাকা মূল্যের আসবাবপত্র
• সরকারি বাসায় না থাকলে: বাড়ি ভাড়া বাবদ ৭০ হাজার টাকা, সেই সঙ্গে বাড়ি ব্যবস্থাপনা খরচ ও সব ধরণের সেবা খাতের বিল
• সহকারী সচিব পদমর্যাদার একজন একান্ত সচিব, এবং ক্যাডারের বাইরে থেকে আরেকজন সহকারী একান্ত সচিব। এছাড়া একজন ব্যক্তিগত সহকারী, একজন জমাদার ও একজন আর্দালি, একজন এমএলএসএস, একজন পাচক বা পিয়ন।

মন্ত্রী-এমপিরা ২০১৬ থেকে এ হারে বেতন-ভাতা পেয়ে যাচ্ছেন। এখন ২০১৯। হতে পারে এ বছর আর না হয় আগামী বছর এ বেতন ভাতা আবার বৃদ্ধি পাবে। যেহেতু প্রতিদিনই জিনিসপত্রের মূল্য বেড়েই চলছে, সেদিকে খেয়াল করে বেতন-ভাতা ও নানা সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি পাওয়া যৌক্তিক নয় মনে করছেন কেউ কেউ। তবে সচেতন মহল মনে করছেন, বাংলাদেশের মানুষের জীবন যাত্রার মান দেখতে হবে, উনারা ক্ষমতায় গিয়ে ইচ্ছেমতো নিজেদের বেতন ভাতা সুযোগ সুবিধা বাড়িয়ে নেবে এটা অযৌক্তিক।