Monthly Archives: জানুয়ারি ২০১৯

গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন আল্লামা বাবুনগরী : খিদমাহ হাসপাতালে ভর্তি

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ-এর মহাসচিব, দেশের অন্যতম প্রধান আলেম আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় ঢাকার খিলগাঁও-এ অবস্থিত খিদমাহ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আজ (২৭ জানুয়ারি) সকালে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের পরামর্শে সাধারণ বিভাগে তাঁকে ভর্তি করা হয়। শনিবার (২৬ জানুয়ারি) বিকালে তাকে রিজেন্ট এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে করে ঢাকায় আনা হয়েছে বলে তার ব্যক্তিগত সহকারী মাওলানা ইনামূল হক ফারুকী জানিয়েছেন।

চিকিৎসকদের সাথে আলাপ করে জানা গছে, আল্লামা বাবুনগরীর পায়ে ইনফেকশন হয়েছে। এছাড়াও বার্ধক্যজনিত রোগসহ দীর্ঘদিন যাবৎ হৃদরোগ, ডায়াবেটিস ও কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে উন্নত চিকিৎসার অভাবে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

এই প্রাজ্ঞ আলেমের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থার বিষয়ে আল্লামা বাবুনগররীর ব্যক্তিগত সহকারী ইন’আমুল হাসান বলেন, বর্তমানে হুজুরকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ছোট একটা অপারেশন আছে বলে জানিয়েছেন ডাক্তাররা।

 

উল্লেখ্য, বেশ কয়েক বছর যাবৎ হার্ট, কিডনি, ডায়াবেটিস, কোলেস্টরল, উচ্চরক্তচাপসহ আরো বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নেয়া খুবই প্রয়োজন। কিন্তু তিনি দেশের বাইরে যেতে পারছেন না। সরকার তার ব্যক্তিগত পাসপোর্ট জব্দ করে রেখেছে।

আল্লামা বাবুনগরীর পাসপোর্ট ফেরত না দেয়ায় ক্ষুব্ধ হেফাজত : কঠোর কর্মসূচির হুশিয়ারি

দীর্ঘ ৫ বছর পরও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর পাসপোর্টটি ফেরত না দেয়ায় ক্ষুব্ধ হেফাজতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ।
এদিকে হেফাজত মহাসচিব ও আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক আল্লামা বাবুনগরী (৭০) অসুস্থ হয়ে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

শনিবার বিকালে তাকে রিজেন্ট এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে করে ঢাকায় আনা হয়েছে বলে তার ব্যক্তিগত সহকারী মাওলানা ইনামূল হক ফারুকী জানিয়েছেন।
তিনি জানান, হেফাজত মহাসচিব বার্ধক্যজনিত রোগসহ দীর্ঘদিন যাবৎ হৃদরোগ, ডায়াবেটিস ও কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে উন্নত চিকিৎসার অভাবে মানবেতর জীবনযাপন করছিলেন।

হেফাজতের কয়েকজন শীর্ষ আলেম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বেশ কয়েক বছর যাবৎ হার্ট, কিডনি, ডায়াবেটিস, কোলেস্টরল, উচ্চরক্তচাপসহ আরো বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নেয়া খুবই প্রয়োজন। কিন্তু তিনি দেশের বাইরে যেতে পারছেন না। সরকার তার ব্যক্তিগত পাসপোর্ট জব্দ করে রেখেছে।এবার যদি পাসপোর্ট ফেরত দেয়া না হয়, তাহলে আলেম-ওলামা ও সাধারণ তৌহিদি জনতার পক্ষ থেকে কঠোর কর্মসূচি দেয়ার হুশিয়ারি দেন হেফাজত নেতারা।

এ ব্যাপারে হেফাজতের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী মোবাইল ফোনে জানান, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হয়েও উন্নত চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত। ইতিপূর্বে উনি হজ, ওমরা ও চিকিৎসার জন্য দেশের বাহিরে যেতে চেয়েছেন। কিন্তু সরকার পাসপোর্ট না দেয়ায় সেটা সম্ভব হয়নি।

প্রসঙ্গত, ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত অরাজনৈতিক ধর্মীয় সংগঠন হেফাজতে ইসলাম ব্যাপক আলোচনায় আসে ২০১৩ সালে। কথিত নাস্তিক ব্লগারদের বিচার চেয়ে মতিঝিলের শাপলা চত্বরে লংমার্চ করে সাংগঠনিক শক্তির জানান দেয় অরাজনৈতিক এই সংগঠনটি।
তবে ওই বছরের ৫ মে শাপলা চত্বরের ঘটনার পর সংগঠনটির মহাসচিব আল্লামা বাবুনগরী গ্রেফতার হয়েছিলেন। সে সময় তার পাসপোর্টটি নিয়ে নেয়া হয়। যা আজও ফেরত দেয়া হয়নি।

উল্টো পথে যেতে বাঁধা দেয়ায় ট্রাফিক পুলিশকে পেটালেন সরকারি কর্মকর্তা

সিলেটে এক ট্রাফিক পুলিশকে জনসম্মূখে পিটিয়ে আহত করার ঘটনা ঘটেছে। অভিযুক্ত ব্যক্তি এক সরকারি কর্মকর্তা। নাম তানজিল আহমদ। তিনি সরকারের ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের একজন কর্মকর্তা। এদিকে মারধরে আহত ট্রাফিক সদস্য মো. আলীকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শনিবার বিকেলে নগরীর চৌহাট্টা পয়েন্টে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তানজিল আহমদ মোটরসাইকেল নিয়ে চৌহাট্টা থেকে জিন্দাবাজার অভিমুখে ওয়ানওয়ের উল্টো পথ দিয়ে প্রবেশের চেষ্টা করেন। এ সময় সিলেট মহানগর পুলিশের দায়িত্বরত ট্রাফিক সদস্য মো. আলী তার মোটরসাইকেলে সিগন্যাল দিলে তিনি তা অমান্য করে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ অবস্থায় ট্রাফিক সদস্য আলী একটু এগিয়ে গিয়ে মোটরসাইকেলের গতিরোধ করলে তানজিল ক্ষেপে গিয়ে মোটরসাইকেল থেকে নেমে তেড়ে আসে। পরে ট্রাফিক সদস্যের হাতের লাঠি কেড়ে নিয়ে তাকে বেধড়ক পেটাতে শুরু করেন।

এক পর্যায়ে উপস্থিত জনতা ও অন্য ট্রাফিক সদস্যরা এসে তানজিলকে আটক করেন। এসময় তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটিও জব্দ করা হয়।

সিলেট মহানগর পুলিশের (ট্রাফিক) উপ পুলিশ কমিশনার ফয়সাল মাহমুদ বলেন, ‘জনসম্মূখে পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় আটক ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।’

জিয়া উদ্যান থেকে জিয়ার কবর সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রীর

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, খুব শিগগিরই সংসদের পাশ থেকে জিয়ার মাজার সরিয়ে নেয়া হবে। কারণ সেটা সংসদের জায়গা। সংসদ ভবনের যে আসল নকশা ছিল সেটা সংগ্রহ করা হয়েছে। সেটা অনুসারে যা থাকার কথা সেগুলো থাকবে, আর যা থাকার কথা নয়- সেগুলো থাকবে না।

শনিবার গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার আন্দারমানিক আবদুল্লাহ মডেল পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অনুষ্ঠানে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আগামী ২৬ মার্চের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করা হবে। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আসা না আসা বিএনপির ব্যাপার। যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে, তারা হারিয়ে যাবে। পরে বাটিচালান দিয়েও তাদের খুঁজে পাওয়া যাবে না। উপজেলা নির্বাচনে যদি কেউ না আসে তাহলেও নির্বাচন বন্ধ থাকবে না। আবার নির্বাচনে কারও অংশগ্রহণও বন্ধ থাকবে না। নির্বাচনের সময় দেখা যাবে, কিভাবে অংশগ্রহণমূলক ও প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন হয়।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুরাদ কবীর, চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন, আবদুল্লাাহ মডেল পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাংবাদিক আলহাজ শোয়াইব মৃধা।

Tagged

১২০ দিনে হাফেজ হলো ৯ বছরের শিশু

মাত্র ১২০ দিনে ( ৪ মাস) পুরো কুরআন শরীফ মুখস্ত করলো আব্দুর রহীম। ৯ বছর বয়সের এই এতিম শিশুটি কক্সবাজার হামেদিয়া এতিমখানা ও হেফজখানার ছাত্র। টেকনাফের মধ্যম হ্নীলা গ্রামের মরহুম নুরুল আজিমের পুত্র সে। ২ ভাই ২ বোনের মধ্যে আব্দুর রহীম তৃতীয়।

শিশু হাফেজ আব্দুর রহিমের পিতা নুরুল আজিম চার বছর আগে সাগর পথে মালয়েশিয়া যাওয়ার সময় নৌকাডুবির ঘটনায় মারা যায়। মা ফাতেমা বেগমের বিয়ে হয় অন্যত্র। তাই এতিমখানায় মানুষ হচ্ছে শিশুটি।

বাবার মৃত্যু ও মায়ের অন্যত্র বিয়ে হয়ে যাওয়ায় অনেকটা কুলহীন হয়ে পড়ে আব্দুর রহীম। এরপর দাদা-দাদীর কাছে থাকতে শুরু করে সে। দাদা ইউছুফ ও দাদী সারা খাতুনের তত্ত্বাবধানে ভর্তি হয় কক্সবাজার হামেদিয়া এতিমখানা ও হেফজ খানায়।

প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক হাফেজ নাজমুল কামাল জানান, আব্দুর রহীম খুবই মেধাবী ও শান্ত ছেলে। এক বৈঠকেই পুরো তিরিশ পারা কুরআন শরীফ শুনিয়েছে সে। এতিমখানার পক্ষ থেকে যতটুকু সম্ভব তাকে সহযোগিতা করা হয়।

তিনি বলেন, সঠিক পৃষ্ঠপোষকতা, অভিভাবকত্ব না পেলে মেধাবী শিশুটির পড়ালেখা ও ভবিষ্যত জীবন অনিশ্চিত হয়ে পড়তে পারে।

এ প্রসঙ্গে এতিমখানার তত্ত্বাবধায়ক জানান, আব্দুর রহীমের পড়ালেখার বিষয়টি কর্তৃপক্ষের নজরে আছে। তবে শিক্ষানুরাগী বিত্তবানরা তার পড়ালেখার সহযোগিতায় এগিয়ে এলে আমরা স্বাগত জানাব।

হাফেজ আব্দুর রহীম বড় হয়ে ইসলামের একজন দাঈ ও খ্যাতনামা আলেম হতে চায়। সে সকলের দোয়া চায়।

Tagged , ,

ভূঁইফোড় অনলাইন চিহ্নিত করা হচ্ছে : হাছান মাহমুদ

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, ভূঁইফোড় অনলাইন চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিতে কাজ চলছে। শনিবার নবম ওয়েজবোর্ডের সুপারিশ পরীক্ষা করে চূড়ান্ত করতে পুনর্গঠিত মন্ত্রিসভা কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান তিনি।

অনেক ভূঁইফোড় অনলাইন মিডিয়ার জন্য সাংবাদিকতা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সেখানে আপনাদের কী ব্যবস্থা থাকবে- এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপস্থিত সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শুরুতেই বলেন, ‘(ভূঁইফোড় অনলাইন) চিহ্নিত করছি।’

এরপর তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি শুরু থেকেই বলে আসছি, কিছু অনলাইন আছে যেগুলো সত্যিকার অর্থে ভালো সংবাদ পরিবেশন করে। যেগুলোর প্রয়োজন আছে। অনলাইনের অবশ্যই প্রয়োজন আছে। এটা আজকের পৃথিবীর বাস্তবতা। কিন্তু কিছু ভূঁইফোড় অনলাইন আছে যারা সত্য সংবাদের চেয়ে প্রপাগান্ডা ছড়ানোর কাজে লিপ্ত। এগুলোকে চিহ্নিত করা হবে। সম্প্রচার নীতিমালা অনুযায়ী এগুলো রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করার একটা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে’।

Tagged

৩শ’ ফুট গভীর কুয়া থেকে শিশুর লাশ উদ্ধার

স্পেনে তিনশ’ ফুট গভীর কুয়া হতে শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছে দমকলকর্মীরা। শনিবার দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর মালাগার কাছের ওই কুয়া থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। দুসপ্তাহ ধরে তাকে উদ্ধারের চেষ্টা চালানো হচ্ছিলো। বিবিসি।

শিশুটির নাম জুলেন। ১৩ জানুয়ারি পরিবারের সঙ্গে ঘুরতে বের হওয়ার পর অত্যন্ত সরু ও ৩শ’ ৩০ ফুট ওই গভীর কুয়ায় পড়ে যায় সে।

দীর্ঘদিন ধরে শিশুটিকে উদ্ধারে রাতদিন কাজ করছিলো উদ্ধার কর্মীরা। অবশেষে শনিবার ভোরে তার মরদেহ পাওয়া যায়।

কর্মকর্তারা ধারণা করছেন, শিশুটি পড়ে যাওয়ার পর কুয়ায় ধস নামে এবং চারদিকের মাটি ভেতরে ঢুকে পড়ে মুখ বন্ধ হয়ে যায়।

কুয়ার সমান্তরালে আরেকটি গর্ত খুড়ে শিশুটিকে উদ্ধারের চেষ্টা করেন উদ্ধারকর্মীরা। কিন্তু প্রাণহীন ছোট্টদেহ উদ্ধারের মধ্যদিয়ে শেষ করতে হয় অভিযান।

Tagged ,

‘ভাসানচর মিয়ানমারের কাছে ভুল বার্তা দেবে’ – ঢাকাকে জাতিসংঘ দূত

মিয়ানমারে মানবাধিকার বিষয়ে জাতিসংঘের বিশেষ দূত ইয়াংগি লি তাড়াহুড়ো করে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর না করার আহবান জানিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, ভাসানচরে সাইক্লোন হলে কি পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে সেটা না দেখে এবং দ্বীপটির সুযোগ সুবিধা পর্যাপ্ত যাচাই না করে কোন ভাবেই তাড়াহুড়ো করে রোহিঙ্গাদের সেখানে পাঠানো উচিত হবে না।

একইসাথে রোহিঙ্গাদের নিজেদের সরাসরি সেখানে গিয়ে দ্বীপটি দেখার সুযোগ করে দেয়ার কথাও বলেছেন তিনি যাতে তারা নিজেরা দেখে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন যে সেখানে তারা যেতে চান কিনা।

বৃহস্পতিবার ভাসানচরে এক সফরের পর আজ (শুক্রবার) ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব বক্তব্য দেন। তিনি অবশ্য হেলিকপ্টার থেকে দ্বীপটির অবস্থা যাচাই করার চেষ্টা করেছেন।

জাতিসংঘ দূত বলেন, তাড়াহুড়ো করে একটি দ্বীপে রোহিঙ্গাদের পাঠানো হলে মিয়ানমারের কাছে ভুল বার্তা দেয়া হবে ।

তিনি বলেন, মিয়ানমার এমন বার্তা পেতে পারে যে বাংলাদেশেই রোহিঙ্গাদের জন্য দীর্ঘমেয়াদী ব্যবস্থা হয়ে যাচ্ছে, তাদের ফেরত না নিলেও চলবে।

“তারা (মিয়ানমার) একটি জঘন্যতম অপরাধ করেও পার পেয়ে যাচ্ছে বলে ভাবতে পারে।”

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া প্রায় এক লক্ষ রোহিঙ্গাকে নোয়াখালীর ভাসানচরে স্থানান্তরের প্রস্তুতি প্রায় শেষ। জানা গেছে, ভাসানচরে বেড়িবাধ নির্মাণ, ঘরবাড়ি, সাইক্লোন শেল্টারসহ অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে।

তবে রোহিঙ্গারা সেখানে যেতে একেবারেই প্রস্তুত নয় বলে জানা গেছে।

সরকারের ভাষ্য কি?

জাতিসংঘের বিশেষ দূতের এসব বক্তব্য নিয়ে সরকারের তাৎক্ষণিক কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে ভাসানচরে যে ব্যাপক একটি প্রস্তুতি চলছে সেই ধারনা সরকারের পক্ষ থেকে আগেই দেয়া হয়েছে।

রোহিঙ্গাদের থাকার বাড়িঘরসহ নানা ধরনের ব্যবস্থাপনা ইতিমধ্যেই তৈরি হয়ে গেছে। সেখানে গেলে মৌলিক যে সুবিধাগুলো দরকার সেগুলো রোহিঙ্গাদের দেয়া হবে বলে সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

শিশুদের শিক্ষার ব্যবস্থার কথা বলা হয়েছে। যারা ভাসানচরে যাবেন সেইসব রোহিঙ্গাদের কক্সবাজারে এসে মাঝেমধ্যে আত্মীয়দের দেখতে যেতে দেয়া হবে বলেও সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

তবে বিবিসি সম্প্রতি সরেজমিনে কক্সবাজার গিয়ে রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলে ধারণা পেয়েছে যে রোহিঙ্গারা ভাসানচরে যেতে চায় না।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কতদূর?

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে জাতিসংঘ দূত বলেন, তাদের ফরিয়ে নিয়ে যেতে হলে যে পরিস্থিতি তৈরি করা দরকার মিয়ানমার তা একেবারেই করছে না, বরং এখনো সহিংস পথ বেছে নিচ্ছে।

তিনি বলেন, এখনো যে কজন রোহিঙ্গা মিয়ানমারে অবশিষ্ট রয়েছে তাদের জন্য খুব ভয়ের একটি পরিবেশ তৈরি করে ধীরে ধীরে সেখান থেকে তাদেরকে বাংলাদেশে বিতাড়নের পদ্ধতি ব্যবহার করা হচ্ছে।

জিরো লাইনে এখনো যে কয়েক হাজার রোহিঙ্গা রয়েছ সেখানে তাদের নিয়মিত ফাঁকা গুলি ছুড়ি ভয় দেখানো, রেডিওতে তাদের নানা ধরনের ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে যাতে তারা বাংলাদেশে ঢুকে যায়।

ইয়াংগি লি বলেন, বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গারা অদূর ভবিষ্যতে মিয়ানমারে ফেরত যেতে পারবে এমন বলা যাচ্ছে না।

সুত্র : বিবিসি

Tagged , ,

হোয়াটসঅ্যাপ-ইনস্টাগ্রাম-ম্যাজেঞ্জারকে একীভূত করতে ফেসবুকের উদ্দ্যেগ

প্রযুক্তি জায়ান্ট ফেসবুক হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম ও ম্যাজেঞ্জার নিয়ে একক ম্যাসেজিং সিস্টেম চালু করার উদ্দ্যেগ নিতে যাচ্ছে। আগামী বছরের শুরুর দিকে এই সিস্টেম চালু করার কথা ভাবছে ফেসবুক।

এর ফলে বিশ্বব্যাপী যে কোটি কোটি ইউজার ফেসবুকের অ্যাপসগুলো ব্যবহার করছেন তারা আরো উন্নতমানের ম্যাসেজিং সেবা পাবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মার্কিন গণমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমসের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ গণমাধ্যম ইন্ডিপেন্ডেন্ট এক প্রতিবেদনে এ খবর দিয়েছে।

তবে উল্লিখিত অ্যাপসগুলো আলাদাভাবে আগের মতোই কার্যকর থাকবে। শুধু ম্যাজেসিং সিস্টেমটা সমন্বিত হবে। বিষয়টি সম্পর্কে যারা অবহিত তারা এমনটাই জানিয়েছেন বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

ফেসবুকের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, এই একীভূতকরণের ফলে ইউজাররা একটি দ্রুত, সহজ, নির্ভরযোগ্য ও ব্যক্তিগত ম্যাসেজিং সিস্টেম পাবেন। যার ফলে ইউজারদের তথ্যের নিরাপত্তা আগের চেয়ে বাড়বে।

তবে তথ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে মানুষের গোপনীয়তার ওপর প্রভাব পড়বে।

তিনি বলেন, ‘সর্বোচ্চ গোপনীয়তা বজায় রেখে আমরা আমাদের মেসেজিং সিস্টেমকে পুরো নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত বন্ধু ও ফ্যামেলির কাছে সহজে পৌঁছে দেওয়ার কাজ করছি।’

যদিও এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে বিস্তারিত কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি, তবে আগামী বছরের শুরুর দিকে এই একীভূতকরণ হতে পারে।

তবে ম্যাসেজিং অ্যাপসগুলোর এই একীভূতকরণ ফেসবুক সিইও মার্ক জাকারবার্গের বক্তব্যের বিপরীত। কারণ তিনি বলেছিলেন, ইনস্টাগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপ সামাজিক মাধ্যমে আলাদা আলদাভাবে পরিচালিত হবে।

Tagged

বিষাক্ত ইয়াবা সেবনে ৩ জনের মৃত্যু, গুরুতর আহত ৭

কক্সবাজারে ও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিষাক্ত ইয়াবা সেবন করে গত  সপ্তাহে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনায় পুরো কক্সবাজারজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ইয়াবায় বিষ ছড়িয়ে পড়ায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে সেবনকারী ও তাদের স্বজনেরা।

এছাড়া ইয়াবা সেবনে অসুস্থ হয়ে আরো ৭ জন বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে বলে জানা গেছে।

বিষাক্ত ইয়াবা সেবনে তিনজনের মৃত্যুর খবর জানালেও পুলিশ ইয়াবার উৎস সম্পর্কে এখনো কিছু জানতে পারেনি।

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মাসুদ হোসেন জানিয়েছেন, ইয়াবা সেবন করে তিনজনের মৃত্যুর খবর শুনেছি। তবে আত্ম-সম্মানের ভয়ে নিহত ও আহত ইয়াবা সেবনকারী বা তাদের স্বজনেরা পরিচয় গোপন রেখে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ায় তাদের পরিচয় এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে পরিচয় সনাক্তে ও বিষাক্ত ইয়াবার উৎস সম্পর্কে জানতে পুলিশ কাজ করছে বলেও জানান তিনি।

Tagged