Monthly Archives: সেপ্টেম্বর ২০২০

কুয়েতের আমিরের ইন্তিকালে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক

রাহবার ডেস্ক: কুয়েতের আমির সাবাহ আল আহমদ আল-জাবের আল-সাবাহ’র মৃত্যুতে একদিনের শোক পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। বৃহস্পতিবার (০১ অক্টোবর) রাষ্ট্রীয়ভাবে এ শোক পালন করা হবে।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ‘বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু কুয়েতের আমির শেখ সাবাহ আল-আহমেদ আল-জাবের আল-সাবাহ-এর ইন্তেকালে আগামী ১ অক্টোবর ২০২০ তারিখ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয়ভাবে ১ (এক) দিনের শোক পালন করা হবে।’

প্রজ্ঞাপনে আরো বলা হয়, শোক উপলক্ষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সব সরকারি ও বেসরকারি ভবন এবং বিদেশস্থ বাংলাদেশ মিশনগুলোতে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে।

আমির শেখ সাবাহ আল-জাবের আল-সাবাহ-এর রূহের মাগফেরাতের জন্য ১ অক্টোবর বাংলাদেশের সব মসজিদে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হবে।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় রাত ৮টার দিকে যুক্তরাষ্ট্রের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় কুয়েতি আমিরের।

সৎ ভাই শেখ জাবের আল-সাবাহের মৃত্যুর পরে ২০০৬ সালে আরব উপসাগরীয় তেলসমৃদ্ধ দেশ কুয়েতের আমির হিসেবে অভিষিক্ত হয়েছিলেন শেখ সাবাহ। তার মৃত্যুর পর দেশটির মন্ত্রিসভা সৎভাই ৮৩ বছর বয়স্ক শেখ নওয়াফ আল আহমেদকে নতুন আমির বলে ঘোষণা করেছে।

এদিকে কুয়েতের আমিরের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পৃথক শোকবার্তায় তারা মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত রাজকীয় পরিবার এবং দেশটির ভাতৃপ্রতীম জনগণের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

এখলাসের সাথে দ্বীনি খেদমত করুন: ফারেগিন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আল্লামা বাবুনগরী

ফয়জুল্লাহ আল হাবীব: গতকাল শেষ হয়েছে কওমী মাদরাসার সর্বোচ্চ শিক্ষাসংস্থা আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের অধিনে দাওরায়ে হাদিস (তাকমিল) পরীক্ষা। এ বছর দাওরায়ে হাদিস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে ২২৩৪২ জন শিক্ষার্থী।

সদ্য ফারেগ হওয়া এ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে নসিহতমূলক বক্তব্য রেখেছেন বাংলাদেশের সর্বপ্রাচীন ও বৃহৎ ইসলামী বিদ্যাপীঠ আল জামেয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার প্রধান শায়খুল হাদিস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) পরিক্ষা শেষে পরীক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, দ্বীনি খেদমত যতই ছোট হোক তাকে কখনো ছোট মনে না করে এখলাসের সাথে তা আঞ্জাম দিবে। এখলাসের সাথে মক্তবে পড়ানো বোখারী শরীফ পড়ানোর সমান সওয়াব। সাথে সাথে দাওয়াতে তাবলিগের কাজে বিশেষ মেহনত করবে।

জামিয়ার শান্ত পরিবেশ এবং নিয়মতান্ত্রিক কার্যক্রম সম্পর্কে সঠিক তথ্য মানুষের কাছে তুলে ধরার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের প্রাণপ্রিয় শায়খ আল্লামা শাহ আহমাদ রহঃ এর মৃত্যু নিয়ে একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে। চলমান পরিস্থিতি নিয়ে যেন কোনরকম গুজব ছড়ানো না হয়। তোমরা সেদিকে বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখবে।

তিনি বলেন, আমাদের শায়খ অসুস্থ হয়ে পড়ায় সাথে সাথে চট্টগ্রাম হসপিটালে ভর্তি করা হয়। অতপর সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজধানী ঢাকার আজগর আলি হসপিটালে স্থানান্তর করা হয় এবং সেখানেই তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তিকাল করেন।

তিনি আরো বলেন, হযরতের ইন্তিকালের পর মজলিসে শুরা কর্তৃক নির্ধারিত দুটি কমিটি মাজলিশে ইদারা ও মজলিশে ইলমীর সিদ্ধান্তে মাদ্রাসা পরিচালিত হচ্ছে। এমনকি শিক্ষক যোগ-বিয়োগসহ যাবতীয় কাজ মাজলিসে ইদারা ও মাজলিসে ইলমী’র পরামর্শ অনুযায়ী আঞ্জাম দেওয়া হচ্ছে।

আল্লামা শফী ছিলেন নাস্তিক্যবাদের আতঙ্ক: আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী

রাহবার ডেস্ক: বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন প্রধান, আমীরে শরীয়ত আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী বলেছেন, শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমাদ শফী সারা জীবন কোরআন-সুন্নাহর খেদমত ও আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে দেশকে অসংখ্য সুশিক্ষিত ও আদর্শ নাগরিক উপহার দিয়ে গেছেন। আল্লামা শফী রহ. এর মেহনতে অগনিত মানুষ অপরাধ এবং পাপের পথ ছেড়ে ইসলামের সঠিক পথের সন্ধান পেয়েছেন। কুরআন-হাদিস প্রচার-প্রসারে তাঁর অপরিসীম ত্যাগ ও কুরবানী জাতির কাছে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

তিনি আরো বলেন, মহান আল্লাহ যুগে যুগে একজন মহামানব প্রেরণ করে ইসলাম ও মুসলমানদের ব্যাপক খেদমত আঞ্জাম দিয়ে থাকেন। আল্লামা শফী রহ. বাংলাদেশে সহি ইসলামী আকিদা প্রচার ও ভ্রান্ত মতবাদের বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ ভুমিকা রেখে গেছেন। তিনি সারা জীবন শিরক-বিদআত, অনৈসলামিক কার্যকলাপ প্রতিরোধ সক্রিয় ছিলেন। ২০১৩ সালে আল্লাহ-রাসূলের দুশমন ও ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিক্যবাদের আগ্রাসী আস্ফালনের বিরুদ্ধে এ দেশের ওলামায়ে কেরাম ও তাওহিদী জনতাকে নিয়ে ইতিহাসের নজিরবিহীন গণআন্দোলন ডাক দিয়ে ছিলেন। তাঁর অনুসরন করে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।

আজ বুধবার বিকালে কামরাঙ্গীরচর মাদরাসায় আল্লামা আহমদ শফী রহ. এর জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে সভাপতির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব মাওলানা হাবীবুল্লাহ মিয়াজী, নায়েবে আমীর মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা শেখ আজিমুদ্দিন, নেজামে ইসলাম পার্টির মহাসচিব মাওলানা মুসা বিন ইজহার, খেলাফত আন্দোলনের যুগ্ম মহাসচিব হাজী জালাল উদ্দিন বকুল, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি সুলতান মহিউদ্দীন, মাওলানা সানাউল্লাহ হাফেজ্জী, মুফতি মুজিবুর রহমান, মাওলানা সাইফুল ইসলাম সুনামগঞ্জী, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, মুফতি ইলয়াছ মাদারীপুরী, মুফতি হাবিবুর রহমান,মুফতি আবুল হাসান কাসেমী ও মাওলানা আব্দুর রহমান বেতাগী প্রমূখ।

মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াযী বলেন, একটি মহল আল্লামা শাহ আহমাদ শফীর মৃত্যু নিয়ে তদন্তের নামে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। তারা অমূলক বক্তব্য দিয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করার চক্রান্ত করছে। এদের থেকে সতর্ক থাকতে হবে।

মাওলানা মুসা বিন ইজহার বলেন, আল্লামা আহমদ শফী রহ. বিরল সন্মানে ভুষিত হওয়ার পিছনে কারন ছিল ছাত্র জীবন থেকে তিনি নিয়মিত তাহাজ্জুত গুজার ছিলেন। তাছাড়া তিনি সারা জীবন দেওবন্দিয়াতের চেতনার ফসল রাতের সাধক ও দিনের মুজাহিদ তৈরীতে মশগুল ছিলেন।

মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী বলেন, শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমাদ শফী একটি সংগ্রাম, একটি ইতিহাস ও একটি বিপ্লবের নাম। তিনি ছিলেন একজন বিশ্ব বরেণ্য আলেমে দ্বীন, লক্ষ লক্ষ আলেমের ওস্তাদ, মুসলিম উম্মাহর মুরব্বী ও রাহবার। ঈমান-ইসলামের প্রশ্নে কোন বাতেলের সাথে আপোষ করতেন না।

মুফতি সুলতান মহিউদ্দীন বলেন, ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিক্যবাদের আগ্রাসী আস্ফালনের বিরুদ্ধে গণমানুষের গড়ে উঠা প্রতিরোধ আন্দোলনের আল্লামা শফী ছিলেন অবিসংবাদিত নেতা। ঈমান ও ইসলাম রক্ষার সে আন্দোলন শুধু বাংলাদেশ নয়, সারা বিশ্বকে কাঁপিয়ে দিয়েছিল। আল্লামা আহমদ শফীর অবর্তমানে ইসলাম নিয়ে কেউ কুটক্তি করলে তার সৈনিকরা বিনা চ্যালেঞ্জ ছেড়ে দেবে না।

আবারো বাড়ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি

রাহবার ডেস্ক: শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি আরো বাড়বে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) এক ভার্চুয়াল মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি তো বাড়াতে হবে, তারিখটা আপনাদের জানিয়ে দেব।’

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেছেন, ছুটি কতদিন বাড়বে, সে সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবারের মধ্যে সংবাদমাধ্যমকে জানাবেন তারা।

আগামী সপ্তাহে উচ্চ মাধ্যমিক তথা এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ করা হবে। পরীক্ষার প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে শিক্ষার্থীদের চার সপ্তাহ সময় দেয়া হবে। তবে কোনো শিক্ষার্থী বিশেষ কারণে পরীক্ষা দিতে না পারলে তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রাখা হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘পরীক্ষা না নিয়ে আগের পরীক্ষার মাধ্যমে মূল্যায়ন করে সার্টিফিকেট প্রদান করার প্রস্তাব করছেন অনেকে। এটিকেও আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি, এটি একটি প্রস্তাব হতে পারে। তবে পরীক্ষা ছাড়া সার্টিফিকেট দিলে তারা যখন চাকরি নিতে যাবে তখন তাদের বলা হবে, ‘ও তোমরা ২০২০ সালের পরীক্ষা ছাড়া পাস করা ব্যাচ।’ এমন পরিস্থিতি তৈরি না করতে আমরা পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘কবে থেকে এইচএসসি-সমমান পরীক্ষা শুরু হবে তা আগামী সপ্তাহের সোম অথবা মঙ্গলবার সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরা হবে। পরীক্ষা আয়োজনে প্রশ্ন, উত্তরপত্র তৈরিসহ সব প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে। এখন শুধু পরীক্ষা শেষ করা বাকি রয়েছে। পরীক্ষা দিতে গিয়ে যাতে কারও ক্ষতি না হয় সে বিষয়টি আমরা গুরুত্ব দেব। বিশেষ কারণে কোনো শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে না পারলে আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে তার পরীক্ষা নেব।’

তবে এবার সব বিষয়ের পরীক্ষা না নিয়ে মৌলিক বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেয়া হবে। কোন কোন বিষয়ের পরীক্ষা নেয়া হবে সেটি আগামী সপ্তাহে ঘোষণা করা হবে। এ ক্ষেত্রে কেউ যদি বিশেষ কারণে পরীক্ষা দিতে না পারে তবে তার জন্য বিকল্প ব্যবস্থা রাখা হবে। সব কিছু আগামী সপ্তাহে ঘোষণা করা হবে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরুর পর গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করা আছে।

রাজশাহী তে গীর্জায় কিশোরী ধর্ষণ, ধর্মগুরু গ্রেফতার।

রাহবার ডেস্কঃ রাজশাহী’র তানোর উপজেলায় একটি ক্যাথলিক গির্জায় তিনদিন আটকে রেখে সপ্তম শ্রেণির ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে ক্যাথলিক ফাদার (ধর্মগুরু) প্রদীপ গ্রেগরিকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৫। মঙ্গলবার রাতে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত ফাদারকে রাজশাহী নগরীর শাহমখদুম থানার আমচত্বর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তার ফাদার প্রদীপ গ্রেগরি তানোর উপজেলার মাহালীপাড়া এলাকার সাধু জন মেরী ভিয়ান্নী গির্জায় কর্মরত।

ল্যাব-৫ এর সিপিএসসির কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এটিএম মাইনুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

ভুক্তভোগীর পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের ওই কিশোরী গত শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকালে বাড়ির পাশে ওই গির্জার পাশে ঘাস কাটতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। অনেক খোঁজাখুজির পর তাকে না পেয়ে পরদিন রোববার (২৭ সেপ্টেম্বর) তানোর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে তার পরিবার। পরে সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে গির্জার ফাদার প্রদীপের ঘরে ওই কিশোরী বন্দি আছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে পরিবারের সদস্য ও এলাকার লোকজন সেখানে খোঁজ করে তাকে উদ্ধার করে। এরপর সন্ধ্যায় গির্জার ভেতরে সালিশি বৈঠক বসে। সেখানে দোষ প্রমাণিত হওয়ায় ফাদার প্রদীপকে অপসারণ করে রাজশাহীতে নিয়ে আসা হয়। আর ভুক্তভোগী ওই কিশোরীকে গির্জার ভেতরে সিস্টারদের কাছে রাখা হয়।

গির্জার প্রধান ফাদার প্যাট্রিক গমেজ ও সালিশি বৈঠকের প্রধান কামেল মার্ডি কিশোরীকে আটকে রেখেছিলেন। ভুক্তভোগীর পরিবারের সদস্যরা নিখোঁজের জিডি থানা থেকে প্রত্যাহার করলে তাকে ছাড়া হবে বলে জানায় গির্জা কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার ওই কিশোরীর পরিবার থানায় অভিযোগ দিলে সন্ধ্যায় তানোর থানার ওসি রাকিবুল হাসান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুশান্ত কুমার মাহাতো গির্জা থেকে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে।

তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাকিবুল হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাতে তানোর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ভুক্তভোগী কিশোরীর পরিবার থানায় অভিযোগ করলে আমরা ঘটনাস্থলে অভিযান চালিয়ে তাকে উদ্ধার করা হয়। সেখান থেকে তাকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। শারীরিক পরীক্ষার জন্য তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়।

Tagged , , , ,

ধীরে ধীরে ঘৃণিত দেশে পরিণত হচ্ছে ভারত।

মোদি আর অমিত শাহ’র বিজেপি সরকারের ভ্রান্ত নীতির কারণে প্রতিবেশীদের সাথে ‘বন্ধুত্বের’ সম্পর্ক নষ্ট হচ্ছে। এর মাধ্যমে ভারত এক বিপজ্জনক পথে এগোচ্ছে বলে মনে করছে ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস। দলটির শীর্ষ নেতা রাহুল গান্ধী টুইটারে এই মন্তব্য করার পাশাপাশি প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম ‘দ্য ইকোনমিস্ট’ এর একটি লিঙ্কও পোস্ট করেছেন, যাতে বলা হয়েছে ভারতের বাংলাদেশের সম্পর্ক একদিকে যখন দুর্বল হচ্ছে, অন্যদিকে তখন চীনের সাথে সম্পর্ক শক্তিশালী হচ্ছে।

বস্তুত ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদি সরকার ভারতের ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দিল্লির পররাষ্ট্রনীতির একটি মূল কথা হল ‘নেইবারহুড ফার্স্ট’। যার অর্থ দাঁড়ায় ‘সবার আগে প্রতিবেশীরা’। কিন্তু প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের নেতা রাহুল গান্ধীর দাবি, এই বন্ধু প্রতিবেশী দেশগুলোই এখন একে একে ভারতকে ছেড়ে যাচ্ছে – আর এ প্রসঙ্গেই তিনি দ্য ইকোনমিস্টের প্রতিবেদনের সূত্র ধরে বাংলাদেশের দৃষ্টান্ত দিয়েছেন। বিগত বহু দশক ধরে এই প্রতিবেশীদের সঙ্গে কংগ্রেস যে ‘সুসম্পর্কের জাল’ তৈরি করেছিল মোদি সরকার সেটাও ধ্বংস করে ফেলছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

ভারতের শেষ কংগ্রেসি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন সালমান খুরশিদ। বিবিসি বাংলাকে তিনি বলছিলেন, ‘প্রতিবেশী দেশগুলো আজ আমাদের প্রতি কতটা বন্ধুত্বপূর্ণ সেটা তো আর তর্কের বিষয় নয় – চোখের সামনে দেখাই যাচ্ছে। এই জন্যই আমাদের দলনেতা বলেছেন আমরা খুব দ্রæত বন্ধুদের হারাচ্ছি, যদি না এর মধ্যেই পুরোপুরি হারিয়ে থাকি।’ তিনি বলেন, ‘আসলে ভারতের বর্তমান সরকার ঘরোয়া রাজনীতিতে নিজেদের দৈত্য বলে মনে করে, যাদের কোনও পরামর্শ বা সহযোগিতা লাগেই না – আর তাদের পররাষ্ট্রনীতিতেও ঠিক সেটারই প্রতিফলন ঘটছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা আফ্রিকা থেকে আসিয়ান, মধ্য এশিয়া-আরব কিংবা নেইবারহুড সব দেশকে চিরকাল সমকক্ষ ভেবে এসেছি, শক্তি-সামর্থ্য-অর্থনীতিতে ফারাক থাকলেও কখনও সেটা তাদের মনে করাতে যাইনি।’

তবে দিল্লিতে বিজেপি’র পলিসি রিসার্চ সেলের অনির্বাণ গাঙ্গুলি অবশ্য একথা মানতেই রাজি নন যে, বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশীরা ভারতকে ছেড়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে দ্য ইকোনমিস্ট বা রাহুল গান্ধীর মতামতকেও নস্যাৎ করে দিচ্ছেন তিনি। তার কথায়, ‘রাহুল গান্ধী আন্তর্জাতিক রাজনীতি কতটা বোঝেন তা নিয়ে মন্তব্য না-করাই ভাল। আর ইকোনমিস্ট-ও এমন একটা জার্নাল যারা দক্ষিণ এশিয়া, বিশেষত ভারতকে বোঝে না বললেই চলে!’ তার পাল্টা প্রশ্ন, ‘এই যে বলা হচ্ছে আমরা বন্ধুদের হারাচ্ছি, তো এই বন্ধুরা ভারতকে ছেড়ে যাচ্ছেটা কোথায়?’

ভারতের সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, সিনিয়র কংগ্রেস এমপি ও বর্তমানে বিদেশ মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির সদস্য পরনিত কাউর অবশ্য এ প্রশ্নের জবাব দিয়ে বলেছেন, ‘এই দেশগুলো চীনের দিকে ঝুঁকছে।’ তিনি বলেন, ‘বেশ কয়েক বছর আগেও আমাদের নেইবারহুডে যে পরিস্থিতি ছিল তার চেয়ে এখন অনেকটাই আলাদা। কারণ এখানে চীনের প্রভাব বাড়ছে আর সেটা আমাদের পররাষ্ট্রনীতির জন্যও খুব উদ্বেগের বিষয়।’

অনির্বাণ গাঙ্গুলি অবশ্য দাবি করছেন, নেপাল কিংবা বাংলাদেশে কোথাও এমন কিছু ঘটেনি যাতে ভারত প্রমাদ গুণবে। তিনি বলেন, ‘নেপালেও প্রধানমন্ত্রী যখন সে দেশের পার্লামেন্টে ভারত-বিরোধী প্রস্তাব পাস করাচ্ছেন, আমরা তখন কাঠমান্ডুর পশুপতিনাথ মন্দিরে ব্যাপক সংস্কারের কাজ করছি, সিউয়েজের লাইন বসাচ্ছি।’ তার দাবি, ভারত বিশ্বাস করে সম্পর্কটা দু’দেশের মানুষের মধ্যে। সরকার আজ আছে, কাল নেই – কিছু আসে যায় না।

সালমান খুরশিদ কিন্তু মনে করিয়ে দিচ্ছেন, ‘মুখে বাংলাদেশকে মিষ্টি কথা বলব আর আসামের বিপুল জনসংখ্যাকে রাতারাতি বাংলাদেশি তকমা দিয়ে দেব, এটা তো হয় না। সুসম্পর্ক চাইলে বাংলাদেশ কোন বিষয়গুলোতে স্পর্শকাতর, সেটা আমাদের আচরণে খেয়াল রাখতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘অনুপ্রবেশ সমস্যা মোকাবিলা করতে চাইলে ঠান্ডা মাথায় ঢাকাকে বোঝানো হোক, বলা হোক তোমাদেরই পরিবার এ দেশে রয়ে গেছে- ওদের ফিরিয়ে নাও, আমরাও সাহায্য করব। তার বদলে আমরা কী বলছি, না বাংলাদেশিদের ছুঁড়ে ফেলে দেব!’ এই ঔদ্ধত্য আর হঠকারিতাই বন্ধু প্রতিবেশীদের মধ্যে ভারতের ভাবমূর্তিকে তলানিতে নিয়ে এসেছে বলে কংগ্রেসের বক্তব্য। যদিও ক্ষমতাসীন বিজেপি সেই সমালোচনা গায়ে মাখছে এখনও তেমন কোনও ইঙ্গিত নেই।

সূত্র : বিবিসি বাংলা।

Tagged , , , , ,

কবিতাঃ আল্লাহ’র নাম, কবিঃ স্বাধীন আসাদ

আল্লাহ’র নাম / স্বাধীন আসাদ

এত যে চাও বাড়ি গাড়ী
দালানকোঠা জমিদারি
শয়তানের দোখায় পরে
করলায় শুধু ভবের কাম
দিনে কয়বার লও
আমার আল্লাহ’র নাম ।।

আযানের ঢাক আসে যখন
মসজিদে যাওনা তখন
পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ কাজা
রাখনা ফরজ রোজা ।
ঝড় জলোচ্ছাস অনাবৃষ্টি ।।
হয় তার পরিণাম
দিনে কয়বার লও
আমার আল্লাহ’র নাম ?

ভালো মন্দের বিচার নাই
হালাল হারাম চিননাই
দিনে দিনে কমছে আয়ূ
ফুরাবে দমের বায়ূ ।
যায়গা জমি জগৎ সংসার ।।
নাই তার কোন দাম
দিনে কয়বার লও
আমার আল্লাহ’র নাম ?

Tagged , , , ,

জিয়াউর রহমান কে নিয়ে বিকৃত নাটকের অভিযোগ, আদালতে মামলা।

রাহবার ডেস্কঃ বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপন করে ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগে আদালতে মামলা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতি জোটের সভাপতি ও সাবেক ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, অভিনেতা সাজু খাদেমসহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে আজ এই মামলা দায়ের করা হয় বেলা ১১টার দিকে ঢাকার সিনিয়র সহকারী জজ দ্বিতীয় আদালতে । মামলাটি পরিচালনা করছে ঢাকা বারের সাবেক সভাপতি মাসুদ আহমেদ তালুকদার, ঢাকা বারের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট ওমর ফারুক ফারুকী সহ ঢাকা বারের সাবেক নির্বাচিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের নেতৃবৃন্দ ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনছাত্র ফোরামের সভাপতি এডভোকেট আশরাফ জালাল খান মনন, সিনিয়র সহ-সভাপতি দেলোয়ার জাহান রুমি সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সুপ্রীমকোর্টের আইনজীবী এডভোকেট আশরাফ জালাল খান আমাদের জানান,
“জাসাসের সহ-সভাপতি আবু সালেহ, বিষয়টি নিয়ে দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ ক্ষুব্ধ। বিএনপির আইন বিষয়ক সসম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের নেতৃবৃন্দ সম্মিলিত আলোচনা করে উক্ত মোকাদ্দমাটি দায়ের করার সিদ্ধান্ত নেয় ঘোষণামূলক মামলা হিসেবে। আগামীকাল মামলাটি শুনানির জন্য ধার্য আছে।। একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, স্বাধীনতার ঘোষক কে এধরনের হীন মানসিকতা রাষ্ট্রকে তাচ্ছিল্য করার সমপর্যায় বলে মনে করেন তিনি।”

মামলার অন্য আসামিরা হলেন, নাট্যকার মান্নান হীরা, নোয়াখালী-২ আসনের এমপি ও আরটিভির চেয়ারম্যান মোরশেদ আলম এবং তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব। প্রসঙ্গত বঙ্গবন্ধু হত্যার দায়মুক্তির প্রতিবাদে সম্প্রতি দেশের স্যাটেলাইট টেলিভিশন, ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে সম্প্রচার হয় নাটক ‘ইনডেমনিটি’।

এই নাটকে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন সাজু খাদেম, ফজলুর রহমান বাবু, চিত্রনায়ক রিয়াজসহ অনেকে। নাটকটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন মান্নান হীরা।

Tagged , , , ,

আল্লামা শফী’র স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে, হাটহাজারী মাদ্রাসার পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ: শিক্ষকবৃন্দের বিবৃতি

শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রাহ.)এর স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে এবং হাটহাজারী মাদরাসার বর্তমান পরিস্থিতি শান্ত ও সুশৃঙ্খল বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকবৃন্দ।

সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) শীর্ষ আসাতাযায়ে কেরামের স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে জানানো হয় যে, বর্তমানে আলহামদুলিল্লাহ আপনাদের দুআয় দারুল উলূম হাটহাজারী মাদরাসার সার্বিক পরিস্থিতি অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খল। নিয়মিত ক্লাশ চলছে। আল-হাইআতুল উলয়া লিল জামিআতিল কওমীয়া’র পরিক্ষাও সুন্দরভাবে চলছে। মাদরাসার শিক্ষকগণ, ছাত্রভায়েরা এবং এলাকাবাসীরা খুবই সন্তুষ্ট।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ছাত্র আন্দোলনে মাদরাসার কোনো উস্তাদ এবং বাহিরের কোনো সংগঠন ও ব্যক্তির উস্কানি বা সম্পৃক্ততা ছিলো না। হযরতের মৃত্যুর জন্য কাউকে দায়ী করা নির্জলা মিথ্যাচার বৈ কিছুই নয়। কোনো নির্দিষ্ট গোষ্ঠী বা ব্যক্তিকে নিজেদের হিনস্বার্থ উদ্ধারে শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রাহ.)এর লাশ নিয়ে রাজনীতি করা এবং কওমী অঙ্গনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির সুযোগ দেওয়া হবে না।
বিবৃতিতে দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার শিক্ষকবৃন্দ বলেন, হযরত আল্লামা শাহ আহমদ শফি (রাহ.) স্বজ্ঞানে এবং স্বেচ্ছায় হাটহাজারী মাদরাসা শূরা কমিটির হাতে দায়িত্ব সোপর্দ করে গেছেন এবং হযরতের ইন্তিকাল স্বাভাবিকভাবেই হয়েছে এবং হযরতের ওসিয়্যাত অনুযায়ী অত্যন্ত মর্যাদার সাথে মাদ্রাসার বায়তুল আতিক জামে মসজিদের পার্শ্বের কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। হযরতের ইন্তিকালে আমরা সকলে অত্যন্ত মর্মাহত ও শোকাহত।

বিবৃতিতে হাটহাজারী মাদ্রাসার শিক্ষকবৃন্দ দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, হযরত আল্লামা শাহ আহমদ শফি (রাহ.)এর মাগফিরাত কামনা ও দারাজাত বুলন্দির জন্য বিশেষভাবে সকলে দুআ করবেন এবং দারুল উলূম হাটহাজারীর ইতিহাস ঐতিহ্য অক্ষুণ্ন রাখতে অতীতের ন্যায় ভবিষ্যতেও মাদরাসার উন্নয়ন ও সার্বিক সহযোগিতায় এগিয়ে আসবেন।

তারা আরো বলেন, দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসা হযরত আল্লামা শাহ আহমদ শফি (রাহ.)সহ সকল মুরুব্বিয়ানে কেরামের উসূল অনুযায়ী চলছে এবং চলবে ইনশাআল্লাহ। আপনারা দুআ করবেন, যেনো আল্লাহ তাআলা দারুল উলূম হাটহাজারীসহ পুরো কওমী অঙ্গনকে সকল ধরনের ফিতনা-ফাসাদ থেকে হেফাজত করেন।

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন- জামিয়া পরিচালনা কমিটির প্রধান মুফতিয়ে আযম আল্লামা আব্দুস সালাম চাটগামী, মজলিসে ইলমির সদস্য আল্লামা মুফতী নূর আহমদ, পরিচালনা কমিটির সদস্য আল্লামা শেখ আহমদ, শায়খুল হাদীস ও শিক্ষা সচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী, সহকারী শিক্ষা সচিব আল্লামা হাফেয শোয়াইব, পরিচালনা কমিটির সদস্য মাওলানা মুহাম্মদ ইয়াহইয়া, মজলিসে ইলমির সদস্য মাওলানা মুহাম্মদ ওমর কাসেমী, নাজেমে দারুল ইক্বামার প্রধান মাওলানা মুফতী জসীম উদ্দীন, দারুল ইক্বামার সদস্য মাওলানা কবীর আহমদ, দারুল ইক্বামার সদস্য মাওলানা আশরাফ আলী নেজামপুরী, সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা হাফেয আহমদ দিদার কাসেমী, দারুল ইক্বামার সদস্য মাওলানা ফোরকান আহমদ প্রমূখ।

উল্লেখ্য, গতকাল (রোববার) রাত ৮টায় দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসা মহাপরিচালকের কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠানটির সকল উস্তাদবৃন্দের উপস্থিতিতে প্রশাসনিক কর্মকর্তাবৃন্দ এবং সিনিয়র মুহাদ্দিস, মুফতি ও শিক্ষকগণ লাইভ ভিডিওতে শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর স্বাভাবিক ইন্তিকালের কথা সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করে বলেছেন, যারা তাঁর ইন্তিকালের পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন তুলতে চাচ্ছেন, তারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারি। তারা নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির জন্যই এমন অভিযোগ তুলছেন। তাদের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট।

ইন’আমুল হাসান ফারুকী
বিশেষ প্রতিবেদক, রাহবার২৪ডটকম
খাদেম, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী

Tagged

সিলেটে নববধু গণধর্ষণ : আদালতে সেই রাতের রোমহর্ষক বর্ণনা দিলেন সেই নারী

দুইদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ সমস্ত মিডিয়ায় আলোচিত সমালোচিত শিরোনাম সিলেটের গনধর্ষণ।
মহানগর হাকিম তৃতীয় আদালতে জবানববন্দি দিয়েছেন গত শুক্রবার এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ। এসময় বিচারক ছিলেন শারমিন খানম নিলা। নিজের সঙ্গে ঘটে যাওয়া জঘন্যতম এ বর্বর ঘটনার রোমহর্ষক বর্ণনা দেন নির্যাতিতা ওই নারী।

দুপুর ১টার দিকে ওসমানী হাসপাতাল থেকে ওই গৃহবধূকে সিলেট মহানগর হাকিম ৩য় আদালতে নিয়ে আসে পুলিশ।

দেড়টার দিকে তিনি আদালতে ওই রাতের ঘটনার ব্যাপারে বিস্তারিত বর্ণনা দেন। আদালতে তার পুরো জবানববন্দি লিপিবদ্ধ করা হয়।উল্লেখ্য, গত শুক্রবার এমসি কলেজে ঘুরতে আসা এক দম্পতিকে আটকে জোর করে ছাত্রাবাসে তুলে আনে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এরপর স্বামীকে বেঁধে মারধর করে তার স্ত্রীকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে সাইফুরসহ অন্যরা।

এ ঘটনায় নির্যাতিতা গৃহবধূর স্বামী শুক্রবার রাতে বাদী হয়ে শাহপরাণ থানায় মামলা করেছেন।

মামলায় এজাহারনামীয় আসামি করা হয়েছে ৬ জনকে। সেই সঙ্গে অজ্ঞাতনামা আরও ২/৩ জনকে আসামি করা হয়।

গৃহবধুর স্বামী উক্ত নৃশংস ঘটনার দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন এবং আর কোন নারী কে এভাবে নির্যাতিত না হতে হয় সে আশাবাদ ব্যাক্ত করেছেন।

Tagged , , , , ,