Category Archives: সারা দেশ

মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানীকে দুই দিনের রিমান্ড

রাহবার২৪.কম: জনপ্রিয় ওয়ায়েজ হাফেজ ক্বারী মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানীকে (২৭) দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার (প্রসিকিউশন) শুভাশীষ ধর বলেন, রফিকুল ইসলামকে সাত দিনের জন্য রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে মঙ্গলবার গাজীপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবেদন করে পুলিশ। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

পুলিশ জানায়, রাষ্ট্রবিরোধী ও উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়ায় মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে র‌্যাবের করা মামলায় ৮ এপ্রিল তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। বর্তমানে তিনি গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে বন্দী।

৭ এপ্রিল রফিকুল ইসলাম মাদানীকে তাঁর গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনার পূর্বধলার লেটিরকান্দা গ্রাম থেকে আটক করে র‌্যাব। পরের দিন র‍্যাবের নায়েক সুবেদার আবদুল খালেক বাদী হয়ে গাজীপুরের গাছা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করেন।

Tagged , ,

মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানীকে কাশিমপুর কারাগারে স্থানান্তর

রাহবার২৪.কম: তরুণ ইসলামী আলোচক মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানীকে গাজীপুর জেলা কারাগার থেকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এ পাঠানো হয়েছে। আজ শনিবার (১০ এপ্রিল) সকাল র‍্যাব-পুলিশের কড়া প্রহরায় তাকে স্থানান্তর করা হয়। গাজীপুর জেলা কারাগারের সুপার বজলুর রশিদ আকন্দ বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) র‍্যাব বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গাজীপুরের গাছা থানায় মামলা করে।

পরে ঢাকায় তার নামে আরও একটি মামলা করা হয়। এর আগের দিন বুধবার (৭ এপ্রিল) ভোরে রফিকুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার লেটিরকান্দা থেকে তাকে আটক করে র‍্যাব।

Tagged ,

ভুয়া দাড়ি লাগিয়ে ওয়াজ করতে গিয়ে গণপিটুনি খেলেন নকল বক্তা! ভিডিও ভাইরাল

মুখে নকল দাড়ি লাগিয়ে ওয়াজ করতে গিয়ে ধরা খেয়ে গণপিটুনির শিকার হলেন এক নকল বক্তা। মাহফিলে ওয়াজ করছেন প্রধান বক্তা। বয়ানের মাঝে শ্রোতাদের মনে তাঁর পরিচয় নিয়ে সন্দেহ জাগে। স্টেজে বসা একজন টান দিয়ে মুখের রুমাল সরাতেই বেরিয়ে এলো আসল পরিচয়, বক্তার মুখে দাড়ি নেই। পরে গণপিটুনির শিকার হয়ে এলাকা ছাড়তে হয় তাকে।

১২ ফেব্রুয়ারি রাত ১১টার দিকে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার এল্লারচর ইউনিয়নের বালিথা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এর একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে দেশজুড়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়।

খোজ নিয়ে জানা যায়, প্রধান অতিথি হিসেবে যে বক্তার ওয়াজে আসার কথা ছিল তিনি ওই এলাকায় পরিচিত। কিন্তু আরেকজন মঞ্চে উঠে বয়ান করতে থাকলে কণ্ঠের মিল না পেয়ে শ্রোতাদের মনে সন্দেহ জাগে। একপর্যায়ে মঞ্চে থাকা একজন স্থানীয় গণমান্য ব্যক্তি সরাসরি ওই বক্তাকে তাঁর পরিচয় জিজ্ঞাসা করেন এবং টান দিয়ে মুখের রুমাল সরিয়ে দেন। পরে ধরা পড়ে যান ওই নকল বক্তা।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. শামছুর রহমান গণমাধ্যমকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সালমা বেগম নামে এক নারী ওই মাহফিলের আয়োজন করেছিলেন। সেখানে ঢাকা থেকে মাওলানা আবুল কালাম আজাদ নামে একজন প্রধান বক্তা হিসেবে আসার কথা ছিল। কিন্তু এ নাম ধারণ করে অন্য একজন এসে প্রধান অতিথির ওয়াজ শুরু করেন। বয়ানের মাঝে শ্রোতাদের মনে সন্দেহ জাগলে তাকে থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। একপর্যায়ে তার মুখের রুমাল টান দিলে দেখা যায় তার দাড়িও নেই!

বিষয়টি বুঝতে পেরে স্টেজেই কথিত বক্তাকে মারপিট শুরু করেন উপস্থিত জনতা। পরে পুলিশের সহায়তায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এলাকাছাড়া করা হয় তাকে।
জানা গেছে, নকল ওই বক্তা এফডিসির একজন ভিডিও এডিটর ও স্ক্রিপ্ট রাইটার। তবে তার নাম-পরিচয় সম্পর্কে সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি। ওই মাহফিলে সিনেমা জগতের খলনায়ক আমির সিরাজী ও নায়ক মেহেদী উপস্থিত ছিলেন।

মসজিদের ওপর  দিলে কবর রচিত হবে: আইভীকে মাওলানা আব্দুল আউয়াল

রাহবার ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর প্রতি ইঙ্গিত করে হুশিয়ারি দিলেন হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর ও ডিআইটি জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আব্দুল আউয়াল।

হুশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ‘নগরীর ডিআইটি মসজিদে হাত দিলে তার কবর রচিত হবে’। শুক্রবার (৫ ফেব্রুয়ারী) জুম্মা’র বয়ানে মসজিদের মুসল্লিদের সামনে এমন ঘোষণা দিয়েছেন।

এই ঘোষণায় উপস্থিত হাজারও মুসল্লী ‘ঠিক’ শব্দ উচ্চরণে সমর্থন জানিয়েছেন । মাওলানা আব্দুল আউয়াল বলেন, ‘মাসদাইর কবরস্থানের পাশে মসজিদের সাথেই দীর্ঘদিন একটি মাদ্রাসা ছিল। মাদ্রাসাটি ভেঙ্গে দিয়েছে উনি (মেয়র আইভী)।

বলেছিলেন, নিজেস্ব অর্থায়নে করে দিবে, এত বছর হয়ে গেল কিন্তু মাদ্রাসাটি করে দিল না। এখন তার মন মত মসজিদ করে আগের ইমাম বাদ দিয়ে একজন বেদাতী ইমাম ডুকিয়েছে সেই মসজিদে।

ইদানিং খবর পেলাম, বাগে জান্নাত মসজিদ ও মাদ্রাসা ভাঙ্গার জন্য লোক পাঠিয়ে ছিল। পরবর্তীতে সিটির জায়গা দাবী করে, সে নিজেই গিয়ে এটাকে ভেঙ্গে পার্ক বানানোর কথা বলেছেন।’

আব্দুল আউয়াল আরও বলেন, ‘এখন আবার আলোচনা শুনছি, ডিআইটি মসজিদের সামনে নাকি ফ্লাইওভার বানানো হবে আর শেখ রাসেল পার্কের দর্শনার্থী নারী-পুরুষ সব মসজিদের উপর দিয়ে চলাচল করবে। আপনারা বুঝতে পেরেছেন ব্যাপারটা?

এখন উনার টার্গেট ডিআইটি মসজিদ নিয়ে যাওয়ার। মসজিদ নিয়ে নিজের মন মত বানাবে। আমাকেও বলেছিলেন, মসজিদটা তাকে দিয়ে দিতে। আর এখন আমি ‘সাধারণ সম্পাদক হওয়ায় তার মাথা তেলে বেগুনে জ্বলতে শুরু করেছে।’

আব্দুল আউয়ালের ভাষ্য, ‘আপনি মেয়র হওয়ার বহু আগে থেকেই এখানে এই মসজিদ সরকারি জায়গায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এই জায়গা আপনার বাবার না। রেলওয়ের জায়গা দখল করে যা মনে চায়, তাই করছেন। এখন আবার ডিআইটি মসজিদ নিয়েও আপনি যা মনে চায়, তাই করতে চাইছেন? আইভী, আপনি মনে রাইখেন, আমি আব্দুল আউয়াল চলে যেতে পারি।

জনগণ কোন দিনও আপনাকে ছাড়বে না। হে ইমানদারেরা, ইমানের উপর বলিয়ান হও। এই ডিআইটি মসজিদের উপর যদি কেউ হাত দেয়, তার কবর রচিত হবে এই বাংলার জমিনে। ডিআইটি মসজিদের সামনে ফ্লাইওভার কোনদিনও বাস্তবায়িত হতে দিবো না।’

আব্দুল আউয়াল মেয়র আইভীর সমালোচনা করে বলেন, ‘উনি নারায়ণগঞ্জের মেয়র। মু’সলিম পরিবারের মেয়ে হয়ে সিঁদুর লাগিয়ে মন্দিরে গিয়ে পুজা করছেন। সেই ছবি নাকি ভাইরাল হয়েছে। একজন আমাকে এনে দেখালেন। আপনি কোরবানী করেন না, অথচ ১০ মহরমে গরু জবাই করেন।

মাজারপন্থী, শিরকপন্থীদের সমর্থন করেন আর কওমি মাদ্রাসা পন্থীদের সতিনের ছেলে মনে করেন। আপনি তো সেই আইভী। আপনার ইতিহাস উন্মোচন হচ্ছে। এগুলো কোন দিন মুসলমানেরা সহ্য করবে না।উল্লেখ্য, ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বাংলাদেশের প্রথম নারী মেয়র। সে ২০০৩ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান ও ২০১১ সাল থেকে এখন পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব পালন করছেন।

দুর্গাপুর প্রেসক্লাব নির্বাচন, রফিক সভাপতি, জামাল তালুকদার সম্পাদক নির্বাচিত

রাহবার দুর্গাপুর(নেত্রকোনা)প্রতিনিধি: নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলা সাংবাদিকদের নিয়ে গঠিত দুর্গাপুর প্রেসক্লাব দ্বি-বার্ষিক ৯ম সাধারণ নির্বাচন ৫ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার বিকালে শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

বিরতিহীনভাবে ২ঘন্টা ভোটগ্রহন চলে এতে সভাপতি পদে দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি এস এস রফিকুল ইসলাম রফিক (কলম প্রতীক), সাধারণ সম্পাদক পদে দৈনিক ভোরের ডাক পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি ও সাপ্তাহিক সুসঙ্গ বার্তা পত্রিকার সম্পাদক জামাল তালুকদার (টেবিল প্রতীক) ও সহ-সভাপতি পদে দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি তোবারক হোসেন খোকন (কাপ পিরিচ প্রতীক) নির্বাচিত হয়েছেন, তিনটি পদে প্রতিদ্বন্দিতা করেছিলেন মোট ৬জন সাংবাদিক সদস্য ।

এছাড়া সহ-সাধারণ পদে রাখী দ্রং, কোষাধ্যক্ষ পদে এইচ.এম সাইদুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক পদে পল্টন হাজং, সম্মানিত সদস্য পদে যথাক্রমে সিনিয়র সাংবাদিক মোঃ মোহন মিয়া, দীপক পত্রনবিশ ও আ.ফ.ম সফিউল্লাহ বিনাপ্রতিদ্বন্দিতায় মনোনীত হয়েছেন। আহবায়ক ও নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন প্রেসক্লাব প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক সাহাদাত হোসেন সরকার কাজল। ৯ সদস্য বিশিষ্ট এই নির্বাহী কমিটি অন্য সদস্যগনকে সাথে নিয়ে ২ বছরের জন্য প্রেসক্লাবের সকল কর্মকান্ড পরিচালনা করবেন।

Tagged , ,

আল জাজিরার বিরুদ্ধে পাবনায় বিক্ষোভ মিছিল

রাহবার ডেস্ক: কাতারভিত্তিক আল জাজিরা টেলিভিশনে শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশবিরোধী ষড়যন্ত্রমূলক প্রচারণার অভিযোগ এনে এর প্রতিবাদে পাবনায় বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে জেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন।

বুধবার (৩ জানুয়ারি) দুপুরে পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে দলীয় কার্যালয় থেকে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে দলীয় কার্যালয়ের সামনে এসে সমাবেশ করে।

বিক্ষোভে জেলা আওয়ামী লীগ, সদর উপজেলা আওয়ামী, পৌর আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।

পথসভায় পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট তসলিম হাসান সুমনের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক সরদার মিঠু আহমেদ, জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র শরিফ উদ্দিন প্রধান, জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাকিব হাসান টিপু, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি ফুরকান আলী, পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান এপ্রিল, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান সুইট, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ভিপি আব্দুল আজিজ, সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম রুমন, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তাজ্লু ইসলাম প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, আল জাজিরা বাংলাদেশ এবং শেখ হাসিনাকে নিয়ে যে মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সংবাদ প্রচার করছে, তা বাংলাদেশকে নিয়ে একটি গভীর ষড়যন্ত্র। বাংলার মানুষ এই ষড়যন্ত্র প্রতিহত করবে।

তারা বলেন, ‘জামায়াত ও যুদ্ধাপরাধীদের দালাল সাংবাদিক নামধারী ডেভিড বার্গম্যান সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্যপ্রমাণ ছাড়াই সরকার ও  শেখ হাসিনাকে দুর্নীতিবাজ বলে কাল্পনিক চরিত্র দিয়ে অসত্য গালগল্প সাজিয়েছেন। জনসমর্থন হারিয়ে বার্গম্যানের মতো দালালদের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক বিশ্বে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করে, পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় যাওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীরা তাদের এ ষড়যন্ত্র কখনোই সফল হতে দেবে না।

নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে ছাদ থেকে পড়ে প্রিয়া নামক গৃহবধূর মৃত্যু

রাহবার মোহনগঞ্জ প্রতিনিধি: নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে বাসার ছাদ থেকে পরে গিয়ে কলেজ শিক্ষকের স্ত্রী ফয়জুন্নাহার খানম প্রিয়া (২৬) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। নিহতের স্বামী আহম্মদ আল মহসীন (মিথুন) মোহনগঞ্জ সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক। প্রিয়া নেত্রকোনা জেলার দূর্গাপুর থানার কাকৈরগড়া ইউনিয়ন এর সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম হাসিম উদ্দিন খান এর ভাতিজি।

রবিবার বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার পৌর এলাকার আল মবিন রোডে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রবিবার বিকেলে ফয়জুন্নাহার তাদের নির্মাণাধীন চারতলা ভবনের তিন তলার ছাদে শুকাতে দেয়া বড়ই আনতে যান। এ সময় ছাদের একপার্শ্বে গিয়ে অসমাপ্ত ওয়ালে ভর করলে ওয়াল ভেঙ্গে নিছে পড়ে যান তিনি। পরে পরিবারের লোকজন তাকে মোহনগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন।

আহম্মদ আল ফরহাতুল ইয়াদ নামে নিহতের ৩ বছরের এক ছেলে সন্তান রয়েছে।

এ ব্যাপারে মোহনগঞ্জ থানার ওসি মো. আব্দুল আহাদ খান সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। পরে করণীয় ঠিক করা হবে।

Tagged

কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় মেখল মাদরাসার নূরানী বিভাগের সাফল্য অর্জন

রাহবার নিউজ ডেস্ক: নূরানী তালীমুল কুরআন বোর্ড চট্টনিউজগ্রাম বাংলাদেশের অধীনে অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় বিশাল সাফল্য অর্জন করেছে ঐতিহ্যবাহী মেখল মাদরাসার নূরানী বিভাগ।

গত ১৫ ই জানুয়ারি শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। মেখল মাদরাসা থেকে পরীক্ষা দেওয়া ৪৬ জনের মধ্যে ৪৩ জন A+ আর ৩ জন A পেয়েছে।
এরমধ্যে ২৩ জন সর্বোচ্চ মেধা তালিকায় স্থান পেয়ে কৃতিত্ব অর্জন করেছে।

ছাত্রদের এ কৃতিত্বে খুশী প্রকাশ করেছেন মেখল মাদরাসার মহাপরিচালক ও নুরানি বোর্ডের কার্যকরী সভাপতি ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আল্লামা নোমান ফয়জী।

তিনি আরো বলেন, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও দক্ষ শিক্ষকমণ্ডলীর নিরলস মেহনত আর শিক্ষার্থীদের প্রচেষ্টার কারণেই এমন কৃতিত্বের ফলাফল অর্জন সম্ভব হয়েছে। আমরা মহান আল্লাহ তায়া’লার শোকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

ইসলামের বিরুদ্ধে কোন ষড়যন্ত্র বাস্তবায়ন হতে দেওয়া হবে না : আল্লামা বাবুনগরী

রাহবার নিউজ ডেস্ক : হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর, হাটহাজারী মাদরাসার শায়খুল হাদীস ও শিক্ষা পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন, সূচনালগ্ন থেকে ইসলামের বিরুদ্ধে বহুমুখী ষড়যন্ত্র চলছে। বর্তমানেও পুরো বিশ্বে ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলমান রয়েছে। তবে ইতিহাস সাক্ষী ইসলাম ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে আজকের দিন পর্যন্ত কেহ সফল হতে পারেনি,ভবিষ্যতেও পারবেও না। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রক্তমাখা ধর্ম ইসলামের বিরুদ্ধে কোন ষড়যন্ত্র বাস্তবায়ন হতে দেওয়া হবে না। বুকের তাজা রক্তের বিনিময়ে হলেও ইসলামের বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে।

আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুরে দেশের জনপ্রিয় তরুণ ওয়ায়েজ মাওলানা রফিকুল ইসলাম পরিচালিত নেত্রকোনা দুর্গাপুর সাওতুল হেরা মাদরাসা ময়দানে আয়োজিত ইসলামি মহাসম্মেলনে লক্ষ লক্ষ মানুষের বিশাল জনসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, নানা অজুহাতে আজ দেশের বিভিন্ন জায়গায় কুরআনের মাহফিল বন্ধ করা হচ্ছে, ইসলাম রক্ষার দূর্গ কওমী মাদরাসায় হামলা ভাংচুর করা হচ্ছে,ওলামায়ে কেরামের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। নাস্তিক মুরতাদ আর রাম-বামরা ওলামায়ে কেরামের কণ্ঠরোধ করে ইসলামের বিজয় ঠেকানোর দিবাস্বপ্ন দেখছে তবে আমাদের বক্তব্য সুস্পষ্ট,হক্কানি ওলামায়ে কেরাম নবী-রাসুলের উত্তরসূরী। জুলুম-
নির্যাতনের করে নবী রাসূলদেরকে যেভাবে হক্ব ও ন্যায়ের পথ থেকে চুল পরিমাণ সরাতে পারেনি ঠিক তদ্রূপ আজকের দিনেও নায়েবে নবী হক্কানি ওলামায়ে কেরামগণকেও জেল জুলুম আর ফাঁসীর ভয় দেখিয়ে হক্বের পথ থেকে চুল পরিমাণ পিছনে সরানো যাবে না।

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী আরো বলেন,
ইসলামকে মিটিয়ে দেওয়ার জন্য জালেম বাদশাহ নমরুদ হযরত ইব্রাহীম আলাহিস সালামকে অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষেপ করেছিল কিন্তু ইব্রাহিম আঃ এর বিরোধিতা করে নমরুদ টিকতে পারেনি,হযরত মুসা আঃ এর বিরোধিতা করে ফিরআউন টিকেনি আজকের দিনেরও যারা নায়েবে নবী ওলামায়ে কেরামের বিরোধিতা করছে তারাও টিকে থাকতে পারবে না। ইসলাম ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীদের ধ্বংস অনিবার্য।

নবী-রাসুলদের দাওয়াতি কাজে বাঁধা প্রদানকারীদের যেই অশুভ পরিণতি হয়েছিলো আজকের দিনে যারা কুরআনের মাহফিল বন্ধ করে ওলামায়ে কেরামের কণ্ঠরোধ করতে চায় তাদেরও সেই অশুভ ও ভয়াবহ পরিণতি হবে।

আমীরে হেফাজত আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী আজ বেলা ২ টায় হাটহাজারী মাদরাসার শিক্ষা ভবন থেকে হেলিকপ্টার যোগে নেত্রকোনায় যান। আমীরে হেফাজতের আগমনকে কেন্দ্র করে পুরো নেত্রকোনার আলেম ওলামা ও সর্বস্তরের তৌহিদি জনতার মাঝে ছিলো খুশীর আমেজ। আল্লামা বাবুনগরীকে এক নজর দেখার জন্য লক্ষ লক্ষ উৎসুক জনতার ভীড় লক্ষ্য করা গেছে।

আল্লামা আব্দুল হক ও আল্লামা জিয়া উদ্দিন এর সভাপতিত্বে মাহফিলে অন্যান্যদের মধ্যে আরো বয়ান করেন,হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় যুগ্মমহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হক, যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর সভাপতি মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীব, মাওলানা আব্দুর রহিম আল-মাদানী, জনপ্রিয় ওয়ায়েজ মাওলানা উবাদুর রহমান হুযাইফি, দূর্গাপুর তথা বৃহত্তর ময়মনসিংহের প্রবিণ আলেমে দ্বীন শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল আজিজ পীর সাহেব লক্ষীপুর, মউ মাদরাসার শিক্ষা সচিব মাওলানা মুফতী মামুনুর রশিদ প্রমূখ।

নানুপুরে মাদ্রাসায় হামলার বিচার না হলে আন্দোলনের দাবানল জ্বলে উঠবে : আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরি

রাহবার ডেস্ক: ফটিকছড়ির মাইজভান্ডারস্থ মান্নানীয়ার পশ্চিম নানুপর দারুস সালাম ঈদগাহ মাদ্রাসা নির্মাণকে কেন্দ্র করে স্থানীয় যুবলীগ নেতা হাসানের নেতৃত্বে হামলা, ভাঙ্গচুর ও ৬ জন তাউহিদী জনতার গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রধান উপদেষ্টা, জামিয়া বাবুনগরের পরিচালক, ইসলামী আইন বাস্তাবায়ন কমিটি ফটিকছড়ি’র পৃষ্ঠপোষক, আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী। তিনি বলেন, আমরা এই নৃশংস সন্ত্রাসী হামলার সুষ্ঠু বিচার চাই। যারা পরিকল্পিত ও ষড়যন্ত্র মূলক ভাবে ফটিকছড়ির শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করতে চায় তাদের দৃষ্টান্তমূলক মূলক শাস্তি চাই।

৪ জানুয়ারী (সোমবার) দুপুরে ঘটনা পরবর্তী তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানিয়ে সংবাদমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী এ কথা বলেন।

ফটিকছড়িতে বেদাতি মাজার পূজারীদের এসব সন্ত্রাসী কর্মকান্ড নতুন কিছু নয়। গত কয়েক বছর আগে জমিরিয়া মাদ্রাসায়ও অতর্কিত ও পূর্ব পরিকল্পিত হামলার করেছিল চিহ্নিত ঐ সুন্নাহ বিরোধী চক্রটি।
দ্রুত সময়ের মধ্যে এ ঘটনার যথাযথ বিচার না হলে পুরো দেশজুড়ে প্রতিবাদী আন্দোলনের দাবানল জ্বলে উঠতে পারে। এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে সরকারকে এর দায়ভার বহন করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, দখলের উদ্দেশ্যে দারুস সালাম ঈদগাহ মাদ্রাসায় হামলার ঘটনা বরদাশত করা হবে না। দেশীয় ও বিদেশী অস্রশস্ত্র নিয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় হামলা চালিয়ে মাদ্রাসার ছাত্রদের রক্তাক্ত করে চরম দৃষ্টতা আর দুঃসাহস দেখানো হয়েছে।

মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে সুশৃঙ্খলভাবে আকিদায়ে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আলোকে বেরলবী ও মাজার পূজারিদের ভ্রান্ত বিশ্বাস ও রুসূমাতের বিরুদ্ধে সরকারের নির্দেশনা মেনে দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করে আসছি। আমাদের আন্দোলনে কখনও কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা ভাঙচুর হয়নি। কোন হামলা ,হত্যা ও হানাহানি হয়নি।
তিনি আরও বলেন, বেদাতী মাজার পূজারীরা বিনা উসকানিতে কওমি মাদ্রাসার নিরীহ ছাত্র ও আলেমদের ওপর হামলা চালিয়ে রক্তাক্ত করে ইতিহাসে একটি কালো অধ্যায়ের সূচনা করেছে। ৯০ শতাংশ মুসলিম অধ্যুষিত দেশে বিশেষ করে আহলে হক তথা হাজারো আওলিয়া আর আলেমদের পদভারে পূণ্যভূমিতে খ্যাত ফটিকছড়ির মাঠিতে দারুস সালাম মাদ্রাসায় গুটিকয়েক ভন্ডরা মাদ্রাসায় হামলা চালিয়ে কোটি কোটি তাউহিদী জনতার কলিজায় আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছে।
সুতরাং মাননীয় সরকার বিশেষ করে ফটিকছড়ির এমপি মহোদয় ,ইউনো স্যার ,উপজেলা চেয়ারম্যান ও প্রশাসনের নিকট আমাদের দাবী এ ন্যাক্কারজনক হামলার প্রকৃত দোষীদের দ্রুত সময়ে খুজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করুন। অন্যাথায় ফটিকছড়িতে যে কোন অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতির জন্য স্থানীয় প্রশাসই দায়ী থাকবে।

বার্তা প্রেরক, আবু মাকনূন মুহাম্মদ আজিজী
সিনিয়র শিক্ষক, জামিয়া বাবুনগর ফটিকছড়ি৷