রাহবার২৪ডটকমঃ উপমহাদেশের ইসলামের অন্যতম সিপাহসালার আল্লামা শাহ আহমাদ শফী রহ. এবং মুরহুম পীর সাহেব চরমোনাই আল্লামা ফজলুল করিম রহ. এর স্মরণে এক দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয় ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০, বাদ জুম’আ দুপুর দুইটা থেকে ঢাকা প্রেসক্লাব এর বিএমএ মিলনায়তনে।

উক্ত স্মরণ সভায় উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী রেজাউল করীম, নায়েবে আমির মুফতি ফয়জুল করিম, খেলাফত যুব মজলিসের সভাপতি মাওলানা মামুনুল হক, দৈনিক ইনকিলাবের সহ সম্পাদক মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী, মাওলানা হাসান জামিল, মাওলানা খালিদ সাইফুল্লাহ আইয়্যুবি ও অন্যান্য উলামায়ে কেরাম।

উক্ত স্মরণ সভায় সদ্য পৃথিবী থেকে বিদায় হওয়া ইসলামের আধ্যাত্মিক রাহবার ও সিপাহসালার হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বেফাক, হাইয়াতুল উলিয়া লিল কওমিয়া বাংলাদেশ এর সভাপতি এবং জামিয়া মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সাবেক মুহতামিম আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহমতুল্লাহি আলাইহি ও মরহুম চরমোনাই পীর সাহেব আল্লামা ফজলুল করিম রহমাতুল্লাহ আলাইহির বর্ণাঢ্য এবং বিদ্রোহী জীবন কর্ম নিয়ে আলোচনা করা হয়। বাংলাদেশের ইসলামের জাগরণে উনাদের অসামান্য অবদানের কথা স্মরণ করা হয় এবং সেই সাথে তাদের বিদ্রোহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়

উল্লেখ্য যে, কিছুদিন আগে মাওলানা মামুনুল হক এর একটি ফেসবুক পোস্ট কে কেন্দ্র করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ও মাওলানা মামুনুল হক এর ভক্ত বৃন্দের মাঝে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক এ ব্যাপক তোলপাড়, আলোচনা-সমালোচনা হয় এবং সেই আলোচনা সমালোচনায় অনেককেই বলতে শোনা যায় যে তারা দুইজনের মাঝে পরস্পর বিরোধীতা রয়েছে কিন্তু আজকের স্মরণসভায় একই মঞ্চে চরমোনাই পীর এবং মাওলানা মামুনুল হক একত্রিত হয়ে সবাইকে পরিষ্কার করে দিয়েছেন যে তাদের মাঝে কোন রকম পরস্পর বিরোধীতা নেই এবং তাদের মাঝে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে।

মাওলানা মামুনুল হক আলোচনার এক পর্যায়ে বলেন যে, ”এখানে ফয়জুল করিম ভাই বসে আছেন। উনাকে এবং আমাকে নিয়ে এ দেশের যুব সমাজ স্বপ্ন দেখে। আমার বড় ভাই মাওলানা মাহফুজুল হক সাহেব কে যেমন মুরুব্বি মানি সেভাবেই ফয়জুল করিম ভাইকেও মুরুব্বি মানি। আমি ফয়জুল করিম ভাই কে বলতে চাই আমাদের বাবা’রা যেই কাজ রেখে গেছেন মুক্তাঙ্গনে আসুন হাতে হাত রেখে কাধে কাধ রেখে ময়দানে অবতীর্ণ হয়। আমরা যদি এক সাথে কাজ করতে পারি তাহলে বাতিলেরা পালাবার পথ খুজে পাবে না। আজ থেকে অনেক আগে যখন আমি বা ফয়জুল করিম ভাই কেও ই এখনকার মত তেমন পরিচিত ছিলাম না সারাদেশে, সে সময় পল্টনের সোহাগ হোটেলে ফয়জুল করিম ভাই আমাকে ফালুদা খাইয়েছিলেন এবং বলেছিলেন আসেন আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়, দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা সাজিয়ে ময়দানে নামি। সেই কথার আলোকে বলতে চাই মরহুম পীর সাহেব চরমোনাই এবং শায়খুল হাদিস সাহেব যে ঐক্যের বীজ বফন করে গেছেন সে প্রেরণা থেকে আমরা আবার ময়দানে নামি। আমাদের মাঝে কোন বিবেধ নেই।”