রাহবার ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস মহামারির কারণে দূরত্ব বজায় রাখার উপর জোর দিচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এমন পরিস্থিতিতে এবারের তাবলিগের বিশ্ব ইজতেমা হবে কি না? তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। রাজধানীর সন্নিকটে তুরাগ নদীর তীরে আগামী বছরের ৮ জানুয়ারি এ বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। তবে এখনো এ বিষয়ে সরকারি কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। যা অন্যান্য বছর ডিসেম্বরের শুরুতেই অনুমোদন দিয়ে দিতো সরকার।

এদিকে সরকারের একটি সূত্র জানিয়েছে, সরকারের তরফ থেকে এবারের ইজতেমার ব্যাপারে নিরুত্সাহিত করা হয়েছে ইজতেমা আয়োজকদের। শেষ পর্যন্ত জোড়ের মতো একদিনের ইজতেমা করার অনুমতি দেয়া হতে পারে। আর যদি অনুমতি হয়ও তবু ফ্লাইট বন্ধ থাকায় বিদেশি মেহমানদের অংশগ্রহণ ছাড়াই অনুষ্ঠিত হবে সে ইজতেমা।

বিশ্ব ইজতেমা মাঠের জিম্মাদার ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ হান্নান এ বিষয়ে বলেছেন, ‘বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে কি হবে না, সেটা ইজতেমার শুরুর ১০ দিন আগেও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। তাছাড়া করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি এখনো স্বাভাবিক হয়নি। দেশের ভেতরেও কোথাও কোনো ধরনের সমাবেশ পালিত হচ্ছে না। সে হিসেবে আমরা দেশের পরিস্থিতির বিবেচনা করে নিশ্চিত করে কোনো কিছু জানাতে পারছি না।’

তিনি বলেন, ‘গতবছর আমাদের ঘোষিত ইজতেমার প্রথম পর্বের তারিখ ছিলো ৮ থেকে ১০ জানুয়ারি ২০২১। দ্বিতীয় পর্ব ছিলো ১৫ থেকে ১৭ জানুয়ারি ২০২১। এখনো আরও দেড় সপ্তাহ বাকি। অনুমতি পাইনি এখনো। যদি সরকার ইজতেমা করার অনুমতি দেয় তাহলে আমরা ইজতেমার আয়োজন করবো। তবে ইজতেমা আয়োজনের জন্য প্রস্তুতি চালু রেখেছি আমরা।’

এদিকে সাদপন্থীর জিম্মাদার ও মারকাজুল উলুম আশ-শরীয়াহ সাভারের প্রিন্সিপাল মাওলানা জিয়া বিন কাসেমী বলেন, ‘আমাদের পক্ষ থেকে বিশ্ব ইজতেমা করার জন্য সবরকমের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। সরকারকে আমরা চিঠি দিয়েছি। এখনো কোনো সবুজ সংকেত পাইনি।’